লোন বা ব্যাংক লোন কাকে বলে | কিভাবে ব্যাংক লোন নিতে হয়?

আসসালামু আলাইকুম। ব্যাংক লোন কি, ব্যাংক লোনের বিভিন্ন ধরণ গুলো এবং ব্যাংক লোন কিভাবে নিবেন, এই সম্পর্কে বিস্তারিত আলোচনা করা হবে।

ব্যাংক লোন কী | what is Bank loan

ঋণ হল অর্থের সমষ্টি যা এক বা একাধিক ব্যক্তি বা সংস্থাগুলি ব্যাঙ্ক বা অন্যান্য আর্থিক প্রতিষ্ঠান থেকে ধার করে যাতে পরিকল্পিত বা অপরিকল্পিত ঘটনাগুলি আর্থিকভাবে পরিচালনা করতে পারে। এটি করার সময়, ঋণগ্রহীতার একটি লোন হয়, যা তাকে নির্দিষ্ট সুদের সাথে একটি নির্দিষ্ট সময়ের মধ্যে ফেরত দিতে হয়।

দৈনন্দিন জীবনে মাঝে মাঝে লোনের প্রয়োজন হয়। মানুষ অনেক ভাবে লোন নিয়ে থাকে যেমন আত্মীয়-স্বজনদের থেকে ব্যাংক থেকে বা পরিবার-পরিজন থেকে।  

আপনি যখন ব্যাঙ্ক থেকে লোন নেবেন, তখন আপনাকে ব্যাংকে জানাতে হবে ,আপনি কি উদ্দেশ্যে লোন নিচ্ছেন।  ব্যাংককে লোনের কারণ জানানোর প্রধান উদ্দেশ্য হল ব্যাংকের বিভিন্ন ধরনের কাজের জন্য বিভিন্ন ধরনের লোন প্রদান করে থাকে এবং এসব লোনের সুদের হার ও লোন ভেদে বিভিন্ন রকম হয়ে থাকে। 

লোন একটি সম্পদ হিসাবে বিবেচিত হয় যার উপর আপনার কোন অধিকার নেই এবং এটি আপনাকে সময়মতো ফেরত দিতে হবে।

ব্যাংক লোনের প্রকারভেদ | Types of Bank Loan

ব্যাংকিংয়ে বিভিন্ন ধরনের লোন রয়েছে,  যার প্রতিটি লোনের সুদের হারও ভিন্ন ভিন্ন। বর্তমানে দুই ধরনের লোন দেখা যায় যথা:

  1. সুরক্ষিত লোন।
  1. অসুরক্ষিত লোন।

সুরক্ষিত লোন (Secured Loan)

সুরক্ষিত লোন হলো ব্যাঙ্ক আপনার কাছ থেকে সম্পত্তি বন্ধক রেখে আপনাকে যে লোন দিয়ে থাকে। আপনি যদি সঠিকসময় লোন পরিশোধ না করে থাকেন তাহলে ব্যাঙ্ক আপনার বন্ধকীর সম্পত্তি বিক্রি করে লোন পুনরুদ্ধার করে থাকে। আর সুরক্ষিত লোন এর সুদের হার খুব কম হয়ে থাকে। 

  •  গৃহ লোন
  •  স্বর্ণ লোন
  • সম্পত্তি লোন  ইত্যাদি সুরক্ষিত লোনের অন্তর্ভুক্ত।
See also  ইসলামী ব্যাংকের বিভিন্ন লোন সূমহ | Islami Bank Loan

হোম লোনঃ

হোম লোন বলতে বোঝায় আপনার বাড়ি কিংবা জমির উপরে ব্যাংক থেকে যে লোন নিয়ে থাকেন। হোম লোন সাধারণত ১৫ থেকে ২০ বছর মেয়াদী হয়ে থাকে ।আপনার জমির মূল্যের সর্বোচ্চ আশি শতাংশ হোম লোন পেতে পারেন। হোম লোনের সুদের হার সাধারণত 8 থেকে 15 শতাংশ হয়ে থাকে।

সম্পত্তি লোনঃ

সম্পত্তি লোন সাধারণত সুরক্ষিত লোনেরই আরেকটি অংশ সম্পত্তি লোন নিতে হলে আপনার জমির কাগজপত্র ব্যাংকে জমা দিতে হবে। আপনি যদি নির্দিষ্ট সময়ের মধ্যে ব্যাংক থেকে নেওয়া অর্থ সুদ সহ ফেরত দিতে না পারেন তাহলে ব্যাংক আপনার জমাকৃত জমি বিক্রি করে উক্ত টাকা উদ্ধার করতে পারে। সম্পত্তির লোনের ক্ষেত্রে সুদের হার শতকরা 8 থেকে 15 শতাংশ হয়ে থাকে।

স্বর্ণ লোনঃ

স্বর্ণ লোন বলতে বোঝায় সোনার অলঙ্কার বা গোল্ড কয়েন বন্ধক রেখে ব্যাংক থেকে যে লোন নেওয়া হয়ে থাকে। স্বর্ণ লোন সাধারণত দুই থেকে তিন শতাংশ সুদেই আপনি পেতে পারেন।

অসুরক্ষিত লোন (Unsecured Loan)

অসুরক্ষিত লোন বা (Unsecured Loan) লোন হলো এমন লোন যেগুলা ব্যাংকের কাছে কোন কিছু বন্ধক না রেখে পাওয়া যায়। যেমন

  • ব্যক্তিগত লোন।
  • স্বল্পমেয়াদী ব্যবসা লোন।
  • শিক্ষা লোন।
  • যানবাহন লোন।

ব্যক্তিগত লোন

ব্যক্তিগত লোন হলো অনিরাপদ লোন, এই লোনে উচ্চ সুদের হার থাকে,এই লোন তাদেরকে দেওয়া হয় যাদের একক আয় ও  ক্রেডিট স্কোর ভালো। যা ভ্রমণ, বাড়ি সংস্কার, শিক্ষা, বিয়ের খরচ ইত্যাদি অন্তর্ভুক্ত। ব্যক্তিগত লোন পেতে হলে আপনার আয় প্রতি মাসে সর্বনিম্ন ৩০ থেকে ৩৫ হাজার টাকা হতে হবে। আপনি যদি ব্যবসায়ী হন তাহলে আপনারা প্রতি মাসে সর্বনিম্ন ৫০ থেকে ৬০ হাজার টাকা হতে হবে অন্যথায় আপনি এ লোন নিতে পারবেন না।

স্বল্পমেয়াদী ব্যবসা লোন

স্বল্পমেয়াদী ব্যবসা লোন হলো যারা ব্যবসায়ী তাদেরকে দেওয়া হয়। যেমন– ছোট নতুন শিল্প ও স্টার্টআপের জন্য দেওয়া হয়ে থাকে, যেখানে ব্যবসায়ীরা তাদের স্বল্পমেয়াদী খরচের জন্য লোন নিয়ে থাকে, যেমন যন্ত্রপাতি ও সরঞ্জাম এবং জায়গা ভাড়া ইত্যাদি ব্যয় করার জন্য স্বল্পমেয়াদি লোন ব্যবসায়ীগণ নিয়ে থাকে।

See also  অগ্রণী ব্যাংক লোন সম্পর্কে বিস্তারিত । Agrani Bank Loan

শিক্ষা লোন

 উচ্চ শিক্ষার জন্য লোন নেওয়া হয় তাকে সাধারণত শিক্ষা লোন বলে। শিক্ষালোন সাধারণত শিক্ষার্থীরা তাদের সেমিস্টার ফি পরীক্ষার ফিস কিংবা বিভিন্ন কোর্স করার জন্য নিয়ে থাকে। 

যানবাহন লোন

যানবাহন লোন বা অটো লোন এক ধরনের অসংরক্ষিত লোনের মধ্যে পড়ে। এলোন সাধারণত যারা গাড়ি কিনবা মোটরসাইকেল কিনতে আগ্রহী তাদেরকে ব্যাংক প্রদান করে থাকে। গাড়ি কিংবা মোটরসাইকেলের মূল্যের সর্বোচ্চ ৮০ শতাংশ ব্যাংক লোন দিয়ে থাকে। যদি অত লোন নিয়ে মোটরসাইকেল কিনবা গাড়ি কিনে থাকেন তাহলে উক্ত গাড়ি ব্যাংকের নামে রেজিস্ট্রেশন হবে ।যতদিন না আপনি আপনার অটো লোন পরিশোধ করছেন ততদিন আপনি উক্ত যানবাহনের মালিক হতে পারবেন না।

শেষ বক্তব্য: পরিশেষে বলি আমরা কোন লোন নিতে আপনাকে উৎসাহিত করছি না ।আমরা শুধুমাত্র লোন সম্পর্কে একটি ক্লিয়ার ধারণা আপনাদেরকে প্রদান করছি। আপনি যদি মুসলিম হয়ে থাকেন তাহলে সুদের কারবার থেকে সম্পূর্ণ দূরে থাকুন, কেননা মহল আল্লাহ তায়ালা বলেছেন সুদ খাওয়া মানে আমার এবং আমার নবীর বিপক্ষে যুদ্ধ করা।

আরো জানুনঃ

FAQ

Bank Loan কত প্রকার ?

ব্যাংক লোন সাধারণত ২ প্রকার ।

Bank Loan নেওয়া কি একজন মুসলিম এর উচিৎ ?

আপনি যদি মুসলিম হয়ে থাকেন, তাহলে কোন ভাবেই আপনি কোন প্রকার লোন কিনবা সুদের কারবারের সাথে জরিত হবেন না। মহান আল্লাহ তালা আপনার রিজিক এর ব্যবস্থা করেছে সুতরাং সুদ থেকে বিরত থাকুন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *