কিভাবে ব্লগিং করে টাকা আয় করবেন? | How to Start a Blog in Bangla

আসসালামু আলাইকুম। কীভাবে বিনামূল্যে ওয়েবসাইট তৈরি করে ব্লগিং করে টাকা আয় শুরু করবেন এ সম্পর্কে অনেকেই জানতে চেয়েছেন। বর্তমান সময়ে প্রায় সব তরুণরাই এই ওয়েবসাইট ব্লগিং নিয়ে ঘাটাঘাটি করে থাকে । কিভাবে ব্লগিং করা যায়?  কিভাবে এডসেন্স থেকে ইনকাম করা যায় এসকল প্রশ্ন প্রতিনিয়তই আমাদের টেলিগ্রাম গ্রুপে আপনারা করে থাকেন তাই আজকে ব্লগিং ব্যবসা নিয়ে বিস্তারিত আলোচনা করব ইনশাআল্লাহ। তো চলুন শুরু করা যাক –

আজকাল ব্লগিং একটি খুব পরিচিত বা অনেক শোনা শব্দ বলে মনে হয়, কিন্তু খুব কম লোকই এর আসল অর্থ জানে। ব্লগিং কাকে বলে?

আসলে আপনি যখন কোনো বিষয়ে একটি ওয়েবসাইট এ লেখালেখি করেন, তখন এই লেখালিখিকেই ব্লগিং বলা হয়। ওয়েবসাইটে আপনি বিভিন্ন বিষয়ে আপনার জ্ঞান অন্য লোকেদের সাথে শেয়ার করেন। আপনি কি কখনও লক্ষ্য করেছেন যে আপনি যখন আপনার কোন প্রশ্ন বা সমস্যা গুগলে সার্চ করেন, তখন গুগল আপনাকে কীভাবে উত্তর দেয়, গুগল কি সব জানে?

 আসলে, Google এই সমস্ত উত্তর বিভিন্ন ব্লগ এবং ওয়েবসাইটের থেকে সংগ্রহ করে আপনার প্রশ্নের উত্তর দেয়। 

এখনও, এই ব্যবসা সম্পর্কে আপনার মনে অনেক প্রশ্ন থাকবে যেমন এটি কীভাবে শুরু করবেন, এতে কত লাভ করা যাবে, এতে কত বিনিয়োগ হবে এবং আপনাকে একদিনে কত লিখতে হবে ইত্যাদি। আমরা এই যে আমাদের আর্টিকেলের মাধ্যমে এই প্রশ্ন গুলোর উত্তর আপনার কাছে পৌঁছে দিচ্ছি এটাই হলো ব্লগিং এর কাজ।

যা যা থাকছে

ব্লগিং এর ব্যবসায়িক সুবিধা | Online Blogging Business Benefit

সচারাচর বলা হয়, যেকোনো ব্যবসার সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ উদ্দেশ্য হলো অর্থ উপার্জন করা, কিন্তু আপনি যদি ব্লগিংকে আপনার পেশা হিসেবে বেছে নেন, তাহলে এতে আপনি আরও অনেক সুবিধা পাবেন, যেগুলো নিম্নরূপ-

ব্লগিং এর মাধ্যমে আপনি আপনার শখকে আপনার ব্যবসায় পরিণত করতে পারেন এবং আপনার প্রতিভাকে আরও বাড়িয়ে তুলতে পারেন।  আপনি যদি লেখালেখির শৌখিন হন তবে এই ব্যবসাটি আপনার জন্য উত্তম একটি ব্যবসা। এই ব্যবসা সঠিকভাবে পরিচালনার জন্য আপনাকে প্রতিদিন একটি নতুন বিষয়ে লিখতে হবে। এর সাথে সাথে প্রতিদিন নতুন নতুন অভিজ্ঞতার সাথে আপনার লেখার প্রতিভা বাড়বে।

আরো জানুনঃ কিভাবে মগ প্রিন্টিং ব্যবসা করে মাসে ৩০ থেকে ৪০ হাজার টাকা ইনকাম করবেন?

আপনার জ্ঞান বাড়বে। আপনি যখন প্রতিদিন নতুন নতুন বিষয়ে লিখবেন, আপনাকে সেগুলি নিয়ে গবেষণাও করতে হবে, এতে আপনার জ্ঞানের ভান্ডার অনেকাংশে বৃদ্ধি পাবে।

আপনার ইচ্ছামত সময়ে কাজ করার স্বাধীনতা  

আপনি যদি অন্য কোনও অফিসে বা বাইরে কাজ করেন তবে আপনাকে তাদের সময়মতো কাজ করতে হবে। তবে এখানে আপনি নিজের সময় বেছে নিয়ে কাজ করতে পারেন। নেই বসের কোন টেনশন। 

আপনি যখন অন্য কারো অধীনে কাজ করেন, আপনাকে তার কথা মতো কাজ করতে হবে, তার মন যুগিয়ে চলতে হবে। কিন্তু এখানে আপনি আপনার নিজের ইচ্ছার কর্তা, আপনি যা সঠিক মনে করেন তা করতে পারবেন। তাই এ ব্যবসায় টেনশন ছাড়াই আপনার কাজ করতে পারেন।

See also  জিম বা ফিটনেস সেন্টার বিজনেস আইডিয়া | Gym Business Ideas Or Fitness Center Business Plan in bangla

আপনি একজন ভালো গবেষক হতে পারবেন

আপনি যখন প্রতিদিন একটি নতুন বিষয় নিয়ে ভাববেন, তা পড়বেন, সেই সম্পর্কে তথ্য সংগ্রহ করবেন, তখন আপনার গবেষণা করার অভ্যাসও গড়ে উঠবে এবং আপনি একজন ভাল গবেষক হয়ে উঠবেন। আপনি যত সময় দিবেন এটার উপর তত আপনার দক্ষতার বৃদ্ধি হবে।

আপনার সৃজনশীলতা বাড়বে – 

ব্যবসাটি যখন আপনার পছন্দের একটি ব্যবসা হবে, তখন আপনি এতে সাফল্যের জন্য প্রতিদিন নতুন নতুন প্রচেষ্টা করবেন, এতে আপনার সৃজনশীলতা বাড়বে এবং আপনি এই সৃজনশীলতা থেকে সাফল্যও পাবেন। সৃজনশীলতা শুধু আপনার ব্লগিং ক্যারিয়ারে সফল হবেন না এতে আপনার ব্যাক্তিগত জীবনেও বিভিন্ন সমস্যা সমাধানে আপনাকে সাহায্য করবে।

আপনি আপনার জ্ঞান এবং আপনার অভিজ্ঞতা শেয়ার করতে সক্ষম হবেন 

আমরা জানি যে জ্ঞান ভাগ করে নেওয়ার মাধ্যমে বৃদ্ধি পায়, তাই এই ব্যবসায় আপনাকে মূলত আপনার জ্ঞান এবং অভিজ্ঞতাগুলি একটি সাধারণ প্ল্যাটফর্মে অন্য লোকেদের সাথে ভাগ করতে হবে। এটি অন্য লোকেদের কে যেমন সাহায্য করে, ঠিক একই ভাবে আপনাকেও নতুন নতুন জ্ঞান আহরণে উৎসাহিত করে।

ব্লগিং থেকে কিভাবে টাকা আয় করবেন  

বেশিরভাগ লোক তাদের আগ্রহ অনুযায়ী শুধুমাত্র একটি ব্লগ নিয়ে বাজারে আসে, কিন্তু যখন তারা অভিজ্ঞতা পায় তখন তারা অন্যান্য বিষয়েও কাজ শুরু করে। আপনি আপনার আসল ব্লগ থেকে শিখবেন আপনার কি করা উচিত, আর কি করা উচিত নয়, আপনার মার্কেটিং কৌশল কি হওয়া উচিত ইত্যাদি এবং আপনি আপনার অন্যান্য ব্লগে এই সব প্রয়োগ করে অর্থ উপার্জন করতে পারেন।

ব্লগিং থেকে বিভিন্ন উপায়ে উপার্জন করা যায় যেমনঃ

  • গুগল এডসেন্স এপ্রুভাল নিয়ে।
  • ইযোয়িক এড এপ্রুভাল নিয়ে।
  • বিভিন্ন পণ্যের এফিলিয়েট করে।
  • বিভিন্ন কোম্পানির এড আপনার ওয়েবসাইটে দেখানোর জন্য, কোম্পানির থেকে চার্জ নিতে পারেন।
  • নিজের পণ্য বিক্রি করে ।
  • বিভিন্ন সফটওয়্যার এর রেফারেল তৈরী করে। 
  • ব্যাকলিংক বিক্রির মাধ্যমেও প্রচুর অর্থ ইনকাম করতে পারবেন। 

এছাড়াও আরো অনেক মাধ্যম আছে ব্লগিং এর মাধ্যমে ইনকামের। আমাদের একজন পরিচিত বন্ধু আছে যিনি প্রতি মাসে শুধু এডসেন্স এর মাধ্যমেই ১ থেকে ২ লক্ষ টাকা ইনকাম করেন। 

ফ্রি ওয়েবসাইট যেভাবে তৈরি করবেন | How to create a free website

আজকাল ব্লগিং করার জন্য অনেকগুলি প্ল্যাটফর্ম তৈরী হয়েছে, এর মধ্যে প্রধান কিছু ব্লগিং প্ল্যাটফর্ম গুলো হলো–

  •  ওয়ার্ডপ্রেস (WordPress)
  •  ব্লগার(Blogger)
  •  টাম্বলার (Tumblr) এবং 
  •  ওয়ার্ডপ্রেস সেলফ হোস্টেড (WordPress self Hosted )  ইত্যাদি। 
  • মিডিয়াম (Medium)

এই প্ল্যাটফর্মগুলির যে কোনটিতে, আপনি বিনামূল্যে একটি ব্লগ ওয়েবসাইট তৈরি করতে পারবেন, তবে আপনি যখন সেগুলিতে একটি ব্লগ তৈরি করবেন, তখন এটি আপনার সাইটের নামের সাথে তাদের ডোমেন নামও যুক্ত করে দিবে। তবে আপনি যদি আপনার পছন্দের ডোমেইন পেতে চান, তাহলে আপনাকে কিছু টাকা খরচ করে আপনার জন্য ডেডিকেটেড ডোমেইন কিনতে হবে।

সেরা ব্লগিং প্ল্যাটফর্ম | Best Blogging Platform

বেশিরভাগ ব্লগই ওয়ার্ডপ্রেসে তৈরি, কেননা এতে কাজ করা খুবই সহজ, এর সাথে থিম এবং প্লাগিংয়ের মতো অন্যান্য অনেক সুবিধা রয়েছে। যা আপনার ব্লগিংকে অনেক সহজ এবং সুন্দর করে তোলে।  এই বিকল্পগুলির কারণে, আপনার সাইটটি আকর্ষণীয় দেখাতে শুরু করে এবং লোকেরা আপনার দিকে আকৃষ্ট হয়।

কিভাবে ডোমেইন ক্রয় করতে হয়?

আপনি যদি আপনার ডোমেইন নিবন্ধন করতে চান, তাহলে আপনাকে প্রথমে আপনার ডোমেইন ঠিকানার নাম নিতে হবে মানে আপনার ওয়েব সাইটের নাম। আপনি আপনার যে বিষয়ে লিখতে চাচ্ছেন সে বিষয়টি আপনার ডোমেইন নামে রাখা উচিত. অন্যথায়, আপনি সার্চ ইঞ্জিন অপ্টিমাইজেশন সম্পর্কিত সমস্যার সম্মুখীন হতে পারেন।

See also  [Roadmap] মুরগির খামার করার পদ্ধতি | How To start A Poltri Fram

ডোমেইন কেনার জন্য অনেকগুলো ওয়েবসাইট রয়েছে। যেখান থেকে আপনি খুব সহজে ডোমেইন কিনতে পারেন।যেমনঃ 

  • Namecheep
  • Hostinger 
  • Godaddy
  • Google ইত্যাদি 

কিভাবে ওয়েব হোস্টিং ক্রয় করবেন?

ব্লগিং এর জন্য আপনার একটি ভাল ওয়েব হোস্টিং প্রয়োজন। আপনি যখন নিজের জন্য ওয়েবহোস্টিং বেছে নেবেন, তখন আপনার মনে রাখা উচিত যে আপনার ওয়েব হোস্টিং নির্ভরযোগ্য হওয়া উচিত।

  • যাতে আপনার ডেটা নিরাপদ থাকে।
  • আপনার সার্ভারের গতি ভালো থাকে।
  • আপনি ভালো ব্যান্ডউইথ এবং ডিস্ক স্পেস পান।
  • আপনি ব্যাকআপ সুবিধা পান। 

সহজ এই বিষয়গুলো মাথায় রেখে আপনি আপনার জন্য সঠিক ওয়েব হোস্টিং বেছে নিতে পারবেন। নিচে অতিপরিচিত কিছু হোস্টিং কোম্পানির নাম দেওয়া হলোঃ 

ব্লগিং এর জন্য বিনিয়োগ

এই ব্যবসায় আপনাকে কত টাকা খরচ করতে হবে তা আমরা নিচের চার্ট থেকে অনুমান করতে পারি।

প্রথমত, আপনার ডোমেইন নিবন্ধনের জন্য আপনাকে ২০০ থেকে ১০০০ টাকা খরচ করতে হতে পারে।

এর পরে, আপনাকে ওয়েব হোস্টিংয়ের জন্য মাসে প্রায় ৮০ থেকে ৩০০ টাকা খরচ করতে হবে, তবে আপনি যদি হোস্টিং ৩-৪ বছরের জন্য একবারে ক্রয় করেন তাহলে অনেক কম খরচে হোস্টিং কিনতে পারবেন।

এর পরে, আপনি যদি আপনার ইচ্ছানুযায়ী আপনার ওয়েবসাইটে একটি থিম নেন, তবে আপনার তাতেও অর্থের প্রয়োজন। এতে আপনি আপনার বাজেট অনুযায়ী ৩০০০  থেকে ৪০০০ টাকা খরচ করে থিম কিনতে পারবেন।

এইভাবে, আপনার একটি ব্লগের জন্য, আপনাকে শুরুতে প্রায় ১০ থেকে ১২ হাজার টাকা খরচ করতে হতে পারে।

ব্লগিং এর জন্য প্রয়োজনীয় স্কিল | Required Skills for Blogging

যে কোন ব্যবসাকে সফল করতে আপনার কিছু বিশেষ ক্ষমতা থাকতে হবে, ঠিক একইভাবে এই ব্যবসায় সফলতার জন্য আপনার কিছু বিশেষ ক্ষমতা থাকতে হবে, যা নিম্নরূপ-

আত্মবিশ্বাস এবং ধৈর্য

 যদিও এটি একটি যোগ্যতা নয়, তবুও একজন সফল ব্লগার হওয়ার জন্য আপনার আত্মবিশ্বাস এবং ধৈর্য থাকা প্রয়োজন। আপনি যখন একটি ব্লগিং সাইট শুরু করেন, তখন প্রতিক্রিয়া জানাতে কমপক্ষে ৬ মাস বা ১ বছর সময় লাগে, কখনও কখনও এটি আরও বেশি সময় নেয়, তাই আপনাকে এই সময়ে ধৈর্য এবং পরিশ্রমী হতে হবে।

লেখার দক্ষতা –

 ব্লগিং একটি ব্যবসা যা সম্পূর্ণরূপে আপনার লেখার দক্ষতার উপর ভিত্তি করে, এই জন্য আপনার হাতের লেখা পড়া সহজ এবং বোঝা সহজ হয় এই দিকে খেয়াল রাখা উচিত। আপনার অনুভূতি আপনার কথায় প্রতিফলিত হওয়া উচিত। যদি আপনার লেখার শিল্প না থাকে তবে এই ব্যবসাটি আপনার জন্য নয়।

ফটো এডিট

 আপনি যদি আপনার লিখিত ব্লগের সাথে ছবিও রাখেন, তাহলে আপনার ব্লগগুলি আরও আকর্ষণীয় হয়ে ওঠে। কখনও কখনও আপনি একটি ভালো ছবির মাধ্যমেও আপনার অনুভূতি প্রকাশ করতে পারেন। যখন একজন দর্শক আপনার সাইট বা ব্লগে যান, একটি ভালো ছবি তাদের আকর্ষণ করে। অতএব, একটি ভালো ছবি তৈরি করার জন্য, আপনার ফটো শপ বা অ্যাডোব ডিজাইনের মতো সরঞ্জামগুলি সম্পর্কে জ্ঞান থাকা প্রয়োজন।

CSS এবং HTML –

 ব্লগিং ছাড়াও আপনার কম্পিউটার কোডিং এবং ভাষা সম্পর্কে জ্ঞান থাকতে হবে। এর জন্য আপনাকে মোটেও ভালো প্রোগ্রামার হতে হবে না, তবে আপনাকে অবশ্যই এর প্রাথমিক জ্ঞান থাকতে হবে।

নেটওয়ার্কিং –

 নেটওয়ার্কিং ব্লগিংয়ের একটি গুরুত্বপূর্ণ অংশ, এর মাধ্যমে আপনি আপনার ব্লগে ভালো এবং খুব বেশি সংখ্যক ট্রাফিক আনতে পারেন। আপনি নিজের জন্য একটি ভালো নেটওয়ার্ক তৈরি করতে পারেন যখন আপনি সর্বত্র উপলব্ধ থাকেন এবং আপনার চারপাশের লোকেদের সাথে এটি বজায় রাখতে পারেন।

আরো জানুনঃ কিভাবে ফাস্ট ফুডের ব্যাবসা শুরু করবেন?

প্রতিদিন মানুষের সাথে যোগাযোগ করার চেষ্টা করুন, তাদের মনে কি চলছে তা জানার চেষ্টা করুন। আপনি এই ব্যবসার জন্য আপনার নেটওয়ার্কিং বাড়ানোর চেষ্টা করতে পারেন যেমন সোশ্যাল মিডিয়াতে সক্রিয় থাকা বা ব্লগিং সম্প্রদায়ে যোগদান করা।

See also  কিভাবে মাসে লক্ষ টাকা আয় জুসের দোকান থেকে | juice shop business idea in bangla

মার্কেটিং দক্ষতা – 

এখানে মার্কেটিং দক্ষতা বলতে আমরা ই-মার্কেটিং বলতে চাই যার মধ্যে রয়েছে ই-প্রমোশন এবং ই-সেলিং। ব্লগিং একটি অনলাইন ব্যবসা এবং প্রতিটি ব্যবসায় মার্কেটিং প্রয়োজন। যদি একজন ব্লগারের ভালো মার্কেটিং দক্ষতা থাকে তাহলে সে তার ব্লগকে ভালোভাবে প্রচার করতে পারে এবং আরো বেশি ট্রাফিক আকর্ষণ করতে পারে।

পাঠকের মন বুঝার দক্ষতা – 

ব্লগিং সবসময় দ্বিমুখী যোগাযোগের একটি ব্যবসা। এটিতে, আপনার পাঠকদের সাথে যোগাযোগ রাখতে হবে, আপনাকে প্রতিদিন তাদের মন্তব্য পড়তে হবে এবং তাদের প্রতিক্রিয়া জানাতে হবে। এ ছাড়া অন্য ব্লগারদের সাথেও যোগাযোগ রাখার চেষ্টা করা উচিত। আপনি তার পোস্টে মন্তব্য করা উচিত।

স্ব-শৃঙ্খলা – 

আপনি যদি একজন সফল ব্লগার হতে চান, তাহলে আপনার কাজ এবং কাজের পদ্ধতিতে শৃঙ্খলা থাকা খুবই গুরুত্বপূর্ণ। আপনি খণ্ডকালীন ব্লগার বা ফুল টাইম ব্লগার হোন না কেন, আপনার সমস্ত কাজের জন্য একটি সময় নির্ধারণ করুন। আপনার ব্লগের ধরন নির্ধারণ করুন। একটি বিষয়ে গবেষণা করুন এবং এটি সম্পাদনা করার জন্য সময় নিন। কারণ আপনার সময় ঠিক না থাকলে আপনি অলস হয়ে যাবেন এবং আপনার কোন কাজই সময়মতো হবে না এবং আপনি পিছিয়ে থাকবেন।

কঠোর পরিশ্রম – 

এতে কোন সন্দেহ নেই যে একজন সফল ব্লগার হতে বা জীবনের যে কোন পর্যায়ে সফল হতে আপনার কঠোর পরিশ্রমের প্রয়োজন, এর জন্য কোন সহজ উপায় নেই। প্রধানত আপনি যদি একজন খণ্ডকালীন ব্লগার হন তবে আপনার কঠোর পরিশ্রমের প্রয়োজন হবে, কারণ এমন পরিস্থিতিতে আপনাকে আপনার প্রতিদিনের কাজে সময় দিতে হবে, তারপরে আপনাকে ব্লগিংয়ের জন্য সময় বের করতে হবে। শুধুমাত্র আপনার দ্বারা করা কঠোর পরিশ্রম আপনাকে সাফল্য এনে দিতে পারে।

অন্যের মন পড়ার দক্ষতা – 

মানুষের মন পড়া খুব কঠিন। কিন্তু তাদের মনে কি আছে জানতে হবে? তারা আপনার কাছ থেকে কি তথ্য চায়? তাদের আগ্রহের বিষয় কি? যদি কোন দর্শক আপনার নিবন্ধটি পড়ে এবং এটি আকর্ষণীয় মনে করে, তবে তিনি আপনার নিবন্ধটি না পড়ে আপনার পৃষ্ঠা ছাড়বেন না এবং তিনি আপনার নিয়মিত পাঠকও হয়ে উঠবেন।

এসইও –SEO

 সবশেষে, আমরা আপনাকে যা বলছি তা হল এই ব্যবসার জন্য সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ বিষয়। আপনি যদি আপনার নিবন্ধটি অনুসন্ধান ফলাফলের শীর্ষে দেখতে চান এবং আপনার সাইটে ভালো ট্র্যাফিক আনতে চান তবে আপনার অবশ্যই এসইও অর্থাৎ সার্চ ইঞ্জিন অপটিমাইজেশন সম্পর্কে জ্ঞান থাকতে হবে। এটি যেকোন ব্লগারের জন্য একটি অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ বিষয়, তবে আপনার এটিকে ভয় পাওয়ার দরকার নেই, এটি কোনও রকেট সাইন নয়, আপনি এটি অনলাইনেও শিখতে পারেন এবং আপনার ব্লগকে সফল করতে এটি ব্যবহার করতে পারেন।

ব্লগিংয়ে সবসময় আপডেট থাকবেন কিভাবে

আপনার ব্লগিং ব্যবসায় আপডেট থাকার জন্য আপনাকে অবশ্যই অন্যান্য পেশাদার ব্লগারদের অনুসরণ করতে হবে। এটি আপনাকে নতুন জিনিস সম্পর্কে জ্ঞান দেবে এবং আপনি এটি আপনার ব্লগেও ব্যবহার করতে পারবেন।

সুতরাং, যদি আপনার লেখার প্রতি অনুরাগ থাকে, তবে এটি আপনার জন্য একটি ভালো ব্যবসা, তবে এর জন্য আপনাকে মনে রাখতে হবে যে আপনার ধারাবাহিকতা বজায় রাখা আপনার জন্য অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। এর জন্য আপনাকে আপনার দিনের অনেক ঘন্টা আপনার ল্যাপটপের সামনে কাটাতে হবে, আপনাকে নতুন জিনিস শেখার জন্যও প্রস্তুত থাকতে হবে। আপনি যদি এই সমস্ত শর্তের জন্য প্রস্তুত হন তবেই আপনার এই ব্যবসা সম্পর্কে চিন্তা করা উচিত নয়ত আপনি এটি শুরু করার জন্য যে অর্থ ব্যয় করেছেন এবং আপনার প্রাথমিক পরিশ্রম বৃথা যাবে।

শেষ বক্তব্যঃ– 

আমরা কে না অর্থ কে ভালোবাসি। সবাই অর্থকে ভালোবাসি। অর্থ উপার্জন করতে হলে আমাদের প্রত্যোকের প্রয়োজন প্রচুর পরিমানে খাটাখাটুনি করা তবেই সফলতার মুখ দেখতে পাবো আমরা। তাই সব কাজকেই  সম্মান দেওয়া আমাদের জুরুরি হোক ছোট বা বড়। তো আজকে আপনাদের জন্য আলোচনা করছি ওয়েবসাইট ব্লগিং নিয়ে তো আপনারা মন দিয়ে বোঝার চেষ্টা করবেন দেখবেন ইনশাআল্লাহ সফলতা পেয়ে যাবেন। আল্লাহ হাফেজ। 

ব্লগিং এর জন্য ডোমেইন এবং হোস্টিং ক্রয় করা কি অতিব জরুরী ?

না আপনি চাইলে blogger.com ফ্রিতেও ব্লগিং শুরু করে প্রচুর অর্থ ইনকাম করতে পারবেন। তবে আপনি যদি ডোমেইন হোস্টিং ক্রয় করার মত অর্থ থাকে তাহলে ডোমেইন হোস্টিং ক্রয় করে শুরু করাটাই বুদ্ধিমান এর কাজ হবে।

ব্লগিং শুরু করতে কেমন অর্থের প্রয়োজন হবে?

প্রার্থমিক পর্যায়ে ৮-১০ হাজার টাকায় আপনি শুরু করতে পারবেন। তবে আপনার কাছে অর্থ না থাকলে আপনি ফ্রি ও শুরু করতে পারেন ব্লগিং।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *