জিম বা ফিটনেস সেন্টার বিজনেস আইডিয়া | Gym Business Ideas Or Fitness Center Business Plan in bangla

আসসালামু আলাইকুম । আজকের টপিক ( Gym Business Ideas ) জিম বা ফিটনেস সেন্টার  বিজনেস আইডিয়া এটা নিয়ে আলোচনা করব ইনশাআল্লাহ। তো চলুন শুরু করা যাক —

বর্তমান সময়ে লাইফস্টাইল এবং ব্যস্ত সময়সূচীর কারণে জিমের প্রয়োজনীয়তা বহু গুণ বাড়ছে। এটা এমন একটি জায়গা যেখানে একজন ব্যক্তি তার দিনের কয়েক ঘন্টা সময় কাটাতে পারে এবং সারা দিন সতেজ বোধ করতে পারে। বর্তমান সময়ে, প্রত্যেকেই ফিট থাকতে চায়।এর জন্য তাদের জীবনধারা বজায় রাখা এবং সুস্থ থাকার একটি বড় প্রয়োজন। 

দেখা যায়, জনসংখ্যা বৃদ্ধির সাথে সাথে সুগার, রক্তচাপ প্রভৃতি লাইফস্টাইল ডিজিজও বাড়ছে। প্রাপ্ত তথ্য অনুযায়ী, বর্তমানে প্রায় ১০ থেকে ১৫ শতাংশ মানুষ গুরুতর সুগার রোগে এবং প্রায় ৩০ থেকে ৩৫ শতাংশ মানুষ ব্লাড প্রেসার, হার্টের সমস্যা, কোলেস্টেরল ও উচ্চ রক্তচাপের মতো রোগে ভুগছেন। 

এই সব ছাড়াও, স্থূলতা আজকাল সবচেয়ে গুরুতর সমস্যা, যার কারণে সবাই ভুগছে। অতএব, এই সমস্ত জিনিসগুলো দেখে জিমের প্রয়োজনীয়তা অনেক বেশি অনুভূত হয় এবং সে কারণেই জিমের ব্যবসায় (gym business) প্রচুর সুযোগ রয়েছে। 

আপনি যদি একটি জিম বা ফিটনেস সেন্টার শুরু করার কথা ভাবছেন, তাহলে এটি একটি ভালো ধারণা। যাতে আপনি সাফল্য অর্জন করতে পারেন।

যা যা থাকছে

কীভাবে ভারতে জিম লাইসেন্স পাবেন। (Getting your Gym Business licence in India in)

আপনার জিমের লাইসেন্স পেতে বা ভারতে আপনার জিম স্থাপনের জন্য আপনার পুলিশের NOC প্রয়োজন। ভারতে নিজের জিম বা ফিটনেস সেন্টার স্থাপন করতে চান এমন প্রত্যেক ব্যক্তির জন্য এটি অপরিহার্য। 

আপনি ব্যক্তিগতভাবে বা অনলাইন উভয়ই এটি আবেদন করতে পারেন। আপনি যদি একটি ছোট শহরে থাকেন তাহলে আপনার পক্ষে চালানো সম্ভব, তবে আপনি যদি বড় শহরে থাকেন তবে ব্যক্তিগতভাবে যাওয়ার চেয়ে অনলাইনে এই প্রক্রিয়াটি করা ভালো। আপনি আপনার স্থানীয় পুলিশ বিভাগে গিয়ে এই সম্পর্কে আরও তথ্য পেতে পারেন।

ভারতে একটি জিম নিবন্ধন কিভাবে করবেন? (How to Register a Gym business in India)

আপনি যদি একটি জিম বিজনেস ( gym business) শুরু করতে চান, তাহলে প্রথমে আপনাকে এটার জন্য একটি ভালো জায়গা নির্ধারণ করতে হবে। আপনাকে প্রথমে এর সাথে জড়িত খরচ গণনা করা উচিত, যখন আপনি এটা সম্পর্কে নিশ্চিত হন, তখনই সামনের পরিকল্পনা করুন। 

ভারত সরকার আপনাকে শুধুমাত্র একটি সীমিত বা প্রাইভেট লিমিটেড ফার্ম হিসাবে জিমের নিবন্ধন প্রদান করবে। এটি আপনাকে প্রোমোটারদের থেকে সুরক্ষা এবং স্থানান্তরযোগ্যতা দেয়। যখন আপনার স্থানান্তর করার ক্ষমতা থাকে, তখন আপনার জিমটি সঠিকভাবে না চলার ক্ষেত্রে এটি অন্য কারো কাছে বিক্রি করার অধিকারও থাকে।

See also  [Roadmap] মুরগির খামার করার পদ্ধতি | How To start A Poltri Fram

আরো জানুন: কিভাবে ব্লগিং করে টাকা আয় করবেন? 

এসএসআই নিবন্ধন (SSI Registration Gym Business)

ভারতের ক্ষুদ্র শিল্পের অধীনে আপনার নিকটস্থ অফিসে আপনার জিম নিবন্ধন করতে হবে। এটি আপনাকে ভবিষ্যতে আপনার লাইসেন্স এবং অন্যান্য স্তরের সুরক্ষা প্রদান করবে৷

রেজিস্ট্রেশন প্রক্রিয়া (Registration Process for gym business)

জিমটি শিল্প ইউনিটের আওতাভুক্ত নয়, তাই প্রাথমিকভাবে আপনাকে অস্থায়ী ভিত্তিতে এর নিবন্ধনের জন্য আবেদন করতে হবে। আপনাকে যখন এটার জন্য আবেদন প্রক্রিয়া করতে হবে, তখন আপনাকে সরকারের কাছ থেকে একটি অস্থায়ী শংসাপত্র প্রদান করতে হবে।

আপনার জিম শুরু হয়ে গেলে এবং ব্যবসা সেট আপ হয়ে গেলে, আপনি এটার জন্য একটি স্থায়ী লাইসেন্সের জন্য আবেদন করতে পারেন।

আপনি যখন স্থায়ী লাইসেন্সের জন্য আবেদন করবেন তখন আপনাকে নিম্নলিখিত বিষয়গুলো মাথায় রাখতে হবে 

স্থায়ী নিবন্ধনের জন্য আবেদন করার ক্ষেত্রে আপনাকে নিম্নলিখিত বিষয়গুলি বিবেচনা করতে হতে পারে।(Incase of applying for permanent registration you may have to consider following points)

আপনি যদি এনওসি সহ অন্যান্য অনুমোদন পেয়ে থাকেন তাহলে শুধুমাত্র আপনি স্থায়ী লাইসেন্স পাওয়ার যোগ্য। স্থায়ী লাইসেন্সের জন্য আবেদন করার আগে, আপনাকে অবশ্যই স্থানীয় পর্যায়ে সমস্ত আনুষ্ঠানিকতা সম্পন্ন করতে হবে।

আপনার জিমের সমস্ত সরঞ্জাম এবং স্থানের জন্য করা বিনিয়োগের সাথে আপনাকে অন্যান্য সমস্ত বিনিয়োগের বিবরণ দিতে হবে।

যদি আপনার জিমের মাধ্যমে বার্ষিক টার্নওভার ৯ লাখের বেশি হয়, তাহলে পরিষেবা করের জন্য আবেদন করা আপনার জন্য বাধ্যতামূলক হবে।

কিভাবে একটি ফ্র্যাঞ্চাইজি জিম খুলবেন? (How to open a Franchise Gym Business ?)

ফ্র্যাঞ্চাইজি জিম শুরু করার আগে, আপনাকে জিমের ধরন এবং বিন্যাস বিবেচনা করতে হবে। ভারতে জিমের জন্য প্রধানত দুটি ধরণের বিভাগ পাওয়া যায়।

ওজন উত্তোলন, কার্ডিও সরঞ্জাম সহ। 

(১) ওয়েট জিম:-

একটি জনপ্রিয় ধরণের জিম, যাতে ওজন উত্তোলন, কার্ডিও এবং জিমের জন্য সরঞ্জাম রয়েছে যার মাধ্যমে জিম করা হয়। এতে ওজন কমানো, ছেলেদের শরীর তৈরি ইত্যাদি প্রশিক্ষণ দেওয়া হয়। এর জন্য, প্রশিক্ষকের এই সমস্ত জিনিস এবং মেশিন সম্পর্কে জ্ঞান এবং বোঝার খুব প্রয়োজন।

(২)ফিটনেস সেন্টার:-

এটি একটি সামান্য বেশি বিস্তৃত ধরণের জিম, যেখানে ওজন বৃদ্ধি, হ্রাস এবং স্বাস্থ্যকর জীবনযাপন সম্পর্কিত প্রশিক্ষণ দেওয়া হয়। অ্যারোবিক্স, যোগব্যায়াম, বিভিন্ন ধরনের আসন, মার্শাল আর্ট ইত্যাদি এই ধরনের জিমের অন্তর্ভুক্ত। সেজন্য প্রশিক্ষকেরও এই সব বিষয়ে ভালো জ্ঞান থাকা প্রয়োজন।

এগুলো সম্পূর্ণরূপে আপনার অবস্থানের উপর নির্ভর করে। আপনি কোন ধরনের জিম শুরু করতে চান। কিন্তু যেকোন ধরনের জিম শুরু করার আগে অবশ্যই সে সম্পর্কে সম্পূর্ণ জ্ঞান / ধারণা থাকতে হবে। 

মনে রাখবেন, যেকোনো ধরনের জিম চালু করতে যে বিনিয়োগ করা হয় তা বিশাল, তাই যেকোনো সিদ্ধান্তে পৌঁছানোর আগে ভালোভাবে চিন্তা করা দরকার হয়। 

জিম সেট প্রক্রিয়া (Gym Business Set Process)

জিম বা ফিটনেস সেন্টার এমন একটি শিল্প যেখানে আপনার একটি বড় বিনিয়োগ প্রয়োজন। অতএব, এটার জন্য আপনাকে প্রথমে আপনার ব্যবসা কেন্দ্রের সাথে সম্পর্কিত একটি পরিকল্পনা সঠিকভাবে প্রস্তুত করা। একজন সিনিয়র ব্যক্তির সাথে পরামর্শ করা এবং অন্যান্য আলোচনা করা প্রয়োজন।

যখন আপনার পরিকল্পনা সঠিকভাবে প্রস্তুত করা হয়, তখন আপনার পরবর্তী কাজ হলো আপনার বিনিয়োগের একটি সম্পূর্ণ তালিকা প্রস্তুত করা। এটি আপনাকে কত টাকা পরিচালনা করতে হবে তার একটি ধারণা দেবে।

See also  কিভাবে মাসে লক্ষ টাকা আয় জুসের দোকান থেকে | juice shop business idea in bangla

এখন আপনার জিম বা ফ্র্যাঞ্চাইজির জন্য প্রয়োজনীয় সমস্ত লাইসেন্সের জন্য পদক্ষেপ নেওয়া উচিত। আর এর সঙ্গে স্থানীয় নিবন্ধনের প্রক্রিয়াও করতে হবে।

এর পরে, আপনার জিমে ইনস্টল করা সমস্ত সরঞ্জামের তথ্য এবং দাম তথ্য পাওয়া উচিত। সরঞ্জাম প্রশিক্ষণ এবং অন্যান্য সরঞ্জামের জন্য কিছু সংস্থার দ্বারা আমানত দাবি করা হয়, তাই এটি আপনার আগে থেকেই জানা গুরুত্বপূর্ণ।

আপনি যদি আপনার ব্যবসার জন্য ঋণ চান, তাহলে আপনাকে বিভিন্ন ব্যাঙ্কে যেতে হবে এবং এর সাথে সম্পর্কিত তথ্য পেতে হবে এবং এর জন্য আবেদন করতে হবে। 

আজকাল, সরকার দ্বারা অনেক ধরণের স্কিমও চালানো হচ্ছে, যার মাধ্যমে আপনি আপনার নতুন স্টার্টআপের জন্য কম খরচে ঋণ নিতে পারেন। আপনি যদি চান তাহলে আপনার এটা সম্পর্কে তথ্য পেয়েও এটি পেতে পারেন ঋণ।

এই সমস্ত জিনিসগুলো পরিচালনা করার পরে, আপনি আপনার ব্যবসা শুরু করতে পারেন, তবে এখনও এটি পরিচালনার জন্য আপনাকে অনেক কঠোর পরিশ্রম এবং উত্সর্গের প্রয়োজন হবে। তবেই আপনি আপনার লক্ষ্যে সফল হতে পারবেন।

টাকা ছাড়া কিভাবে একটি জিম ব্যবসা শুরু করবেন (How to start a Gym Business with no money)

যদিও টাকা ছাড়া কোনো ব্যবসা শুরু করা সম্ভব নয়, তবুও আমরা এখানে এমন কিছু উপায় বলছি যার মাধ্যমে আপনি টাকা ছাড়াই নিজের জিম শুরু করতে পারবেন।

আপনার যদি অর্থের অভাব হয় এবং এই সমস্ত বিষয়ে আপনার ভালো জ্ঞান এবং অভিজ্ঞতা থাকে তাহলে আপনি একটি জিম বা ফিটনেস সেন্টারে কিছু জায়গা ভাড়া নিয়ে আপনার কাজ করতে পারেন। এছাড়াও, আপনি লোকেদের বাড়িতে গিয়ে জিম প্রশিক্ষণ দিতে পারেন।

আপনি যদি এই ক্ষেত্রে কাজ করতে চান তাহলে আপনি একটি ভালো এবং বিখ্যাত জিম বা ফিটনেস সেন্টারে প্রশিক্ষণার্থীর কাজও করতে পারেন।

এই সব ছাড়াও, আপনি কোন আধুনিক যন্ত্রপাতি ছাড়াই আপনার বাড়িতে খুব ছোট পর্যায়ে আপনার নিজের ফিটনেস সেন্টার চালু করতে পারেন। এখানে আপনি আপনার ছাত্রদের যোগব্যায়াম, বিভিন্ন আসন এবং অ্যারোবিক্স এবং বিভিন্ন নৃত্যের ফর্মের সাথে প্রশিক্ষণ দিতে পারেন।

আপনি চাইলে শুরুতে বিভিন্ন কলোনীর বাগানে সকালে আপনার ক্লাস নিতে পারেন, যেখানে আপনি প্রতিটি শ্রেণির মানুষকে যোগব্যায়াম প্রশিক্ষণ দিতে পারেন। যোগ হল প্রাথমিক উপায় যার মাধ্যমে আমাদের পূর্বপুরুষরা সুস্থ থাকতেন, আজও এটি খুব প্রচলিত, যা আপনি ব্যবহার করতে পারেন, কিন্তু এর জন্য আপনার এটির সম্পূর্ণ এবং সঠিক জ্ঞান থাকা প্রয়োজন।

জিমের সরঞ্জামের তালিকা এবং দাম (Gym Business Equipment list and prices )

একটি জিমের জন্য সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ বিষয় হলো এতে ব্যবহৃত যন্ত্রপাতি। অনলাইনে ঘরে বসেই এসব ডিভাইস সম্পর্কে তথ্য পেতে পারেন। এখানে আমরা আপনাকে কিছু ভালো অনলাইন জিম সরঞ্জাম সরবরাহকারীদের সম্পর্কে তথ্য দিচ্ছি, যার মধ্যে রয়েছে সরঞ্জামের তালিকা এবং দাম।

fitness-world.in

jerafitness.com/

indiamart.com/

মোট বিনিয়োগ (Total Investment For Gym Business)

আপনার ব্যবসার মোট বিনিয়োগ আপনার ব্যবসার আকার এবং স্তরের উপর ভিত্তি করে। নীচের পয়েন্টে, আমরা আপনাকে আপনার বিনিয়োগের কিছু অনুমান দিবো যা আপনার পরিকল্পনায় কাজে লাগবে।

আপনার যদি ব্যবসার আকার মাঝারি হয় এবং আপনি এটি প্রায় ২৫০০ থেকে ৩০০০ বর্গফুট এলাকায় শুরু করতে চান, তাহলে আমাদের মতে আপনাকে আপনার ব্যবসায় প্রায় ৭০ থেকে ৮০ লাখ টাকা বিনিয়োগ করতে হবে। এই টাকার মধ্যে আপনার সমস্ত খরচ যেমন জায়গার অভ্যন্তর, সরঞ্জামের খরচ, বিপণন এবং বিজ্ঞাপনের খরচ ইত্যাদি অন্তর্ভুক্ত।

See also  কিভাবে সেলো টেপ ব্যবসা করা যায় | Cello Tape Making Business Idea In Bangla 

আপনি যদি এর চেয়ে বড় পরিসরে ব্যবসা শুরু করতে চান এবং আপনার জায়গার আকার ৩০০০ থেকে ৩৫০০ বর্গফুট হয়, তাহলে আপনার বিনিয়োগও বাড়ে। এর জন্য আপনাকে প্রায় ৮০ থেকে ৯০ লাখ টাকা খরচ করতে হবে। এর মধ্যে অভ্যন্তরীণ, সরঞ্জাম এবং বিপণনের বিজ্ঞাপনের খরচ অন্তর্ভুক্ত থাকবে।

আপনি যদি এর চেয়ে বড় জায়গায় প্রায় ৩৫০০ থেকে ৪০০০ বর্গফুট জায়গা শুরু করতে চান তাহলে আপনার খরচ বাড়বে প্রায় ১ কোটি টাকা।

জিম ব্যবসার লভ্যাংশ (Gym Business Profit Margin)

জিমের লাভ নির্ভর করে আপনি যে এলাকায় জিম শুরু করেছেন তার উপর। এটি আপনার জিমের গ্রাহকদের সংখ্যা এবং তাদের ফি এর উপরও নির্ভর করে। 

আমাদের মতে, আপনি যদি আপনার জিমে  ৭০ থেকে ৮০ লাখ টাকা বিনিয়োগ করেন, তাহলে আপনি বছরে প্রায় ১৫ থেকে ২০ লাখ টাকা আয় করতে পারবেন।

জিম ব্যবসার মার্কেটিং কৌশল (Gym Business Marketing strategy)

যেকোনো ব্যবসার জন্য মার্কেটিং সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ বিষয়, এটি ছাড়া আপনার ব্যবসার বিকাশ কঠিন হয়ে পড়ে। নীচের কয়েকটি পয়েন্টে, আমরা আপনাকে কিছু বিপণন পদ্ধতি বলবো যা আপনাকে কাজে দিবে। 

যেকোনো জিম বা ফিটনেস সেন্টার বাজারজাত করার সবচেয়ে জনপ্রিয় উপায় হলো বিভিন্ন অফার। আপনি বার্ষিক প্যাকেজ বা নতুন গ্রাহকদের কিছু আকর্ষণীয় স্কিম অফার করে আপনার নিয়মিত গ্রাহকদের আকৃষ্ট করতে পারেন।

এছাড়াও, আপনি আপনার স্থানীয় নিউজ চ্যানেলে বিজ্ঞাপন বা প্রচারপত্র বিতরণ করে আপনার কেন্দ্রের প্রচার করতে পারেন। এছাড়াও আপনি বিভিন্ন আকর্ষণীয় হোর্ডিং এর মাধ্যমে নিজেকে প্রচার করতে পারেন।

আপনি চাইলে বিভিন্ন কলেজে নিজের প্রচারও করতে পারেন। ফিটনেস সেন্টারের প্রচারের জন্য সবচেয়ে ভালো জায়গা হলো হাসপাতাল, আপনি সেখানে গিয়ে বিভিন্ন রোগীদের ফিটনেসের সুবিধার কথা বলে আপনার সেন্টারের প্রচার করতে পারেন।

এছাড়াও, আপনি আপনার জিমে স্টিম বাথ, ডায়েটিশিয়ান সুবিধা ইত্যাদির মতো অতিরিক্ত সুবিধা দিয়ে নিজেকে প্রচার করতে পারেন।

জিম ব্যবসার জন্য মার্কেটিং এরিয়া (Market area For Gym Business)

আপনার টার্গেট গ্রাহকরা কর্পোরেট সেক্টর হতে পারেন, যারা ব্যায়ামের জন্য তাদের ব্যস্ত রুটিন থেকে কিছুটা সময় দূরে রাখতে চান।

কর্পোরেট সম্পর্কিত ব্যক্তি এবং ব্যবসায়ী ছাড়াও, আপনি আপনার জিমে আসার জন্য ঘরের স্ত্রী এবং ভদ্রমহিলাদেরও আকৃষ্ট করতে পারেন।

এগুলি ছাড়াও, আপনি খেলোয়াড় এবং এই জাতীয় যুবকদের আপনার জিমে প্রশিক্ষণের জন্য আমন্ত্রণ জানাতে পারেন যারা বিভিন্ন পরীক্ষার জন্য প্রস্তুতি নিচ্ছেন এবং ফিটনেস প্রশিক্ষণ চান।

সতর্কতা (Precaution)

সতর্কতা হলো এমন জিনিস যা আপনাকে প্রতিটি ব্যবসায় নিতে হবে যাতে আপনি বিভিন্ন অসুবিধা এবং ঝামেলা এড়াতে পারেন। আমরা আপনাকে এই ব্যবসার সাথে সম্পর্কিত কিছু জিনিস বলছি, যা আপনার যত্ন নেওয়া উচিত।

প্রথমত, আপনার ব্যবসার পরিকল্পনা সম্পূর্ণভাবে প্রস্তুত করা উচিত, যাতে আপনি আপনার সামনে আসা সমস্যাগুলোর একটি ধারণা পেতে পারেন। কারণ এই ব্যবসায় বিনিয়োগের পরিমাণ অনেক বেশি, তাই আপনার উচিত বীমা এবং সরকারী স্কিম সম্পর্কে আগে থেকেই তথ্য নেওয়া, যাতে আপনি যদি কোনও ধরণের সুবিধা পেতে পারেন তাহলে আপনি তা থেকে বঞ্চিত না হন।

এগুলো ছাড়াও আপনার কেন্দ্রে আসা লোকেদেরকে তাদের স্বাস্থ্য শংসাপত্র আগে থেকে জমা দিতে হবে যাতে আপনি তাদের স্বাস্থ্য অনুসারে জিমিং এবং অন্যান্য ক্রিয়াকলাপ পেতে পারেন। এগুলি ছাড়াও, সতর্কতা হিসাবে, আপনার তাদের দ্বারা করা চুক্তিতে স্বাক্ষর করা উচিত যাতে সমস্ত জিনিস নিশ্চিত থাকে।

Source: naver give up idea (youtube)

আপনার মনে রাখা উচিত যে আপনার জিমে প্রশিক্ষণ নেওয়া সমস্ত লোককে প্রশিক্ষণ দেওয়া উচিত পাশাপাশি আপনাকে ব্যক্তিগতভাবে সমস্ত গ্রাহকদের যত্ন নেওয়া উচিত যে তাদের প্রশিক্ষণ সঠিকভাবে করা হচ্ছে কিনা চারদিকে খেয়াল রাখতে হবে এটা আপনার দায়িত্ব ও কতব্য।

শেষ বক্তব্য –

জিম বিজনেস বা ফিটনেস সেন্টার নিয়ে উপরে আলোচনা করা হয়েছে। শরীর ফিটনেস রাখার জন্য সবাই ই এই জিম গুলো করে থাকে। 

এই ব্যাবসায় লাভবান হতে হলে অবশ্যই উপরের বিষয় গুলো ভালোভাবে পড়তে ও বুঝতে হবে। এই বিষয়ে অভিজ্ঞতা থাকা আবশ্যক তাই আপনারা ভালোভাবে উপরের লাইন গুলো বুঝবেন তাহলে অবশ্যই সফল বিজনেস ম্যান হবেন। 

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *